Palash Biswas On Unique Identity No1.mpg

Unique Identity No2

Please send the LINK to your Addresslist and send me every update, event, development,documents and FEEDBACK . just mail to palashbiswaskl@gmail.com

Website templates

Zia clarifies his timing of declaration of independence

What Mujib Said

Jyoti basu is DEAD

Jyoti Basu: The pragmatist

Dr.B.R. Ambedkar

Memories of Another Day

Memories of Another Day
While my Parents Pulin Babu and basanti Devi were living

"The Day India Burned"--A Documentary On Partition Part-1/9

Partition

Partition of India - refugees displaced by the partition

Thursday, August 27, 2015

PRESS RELEASE : A dream finally coming true – An International Memorial to Dr Babasaheb Ambedkar in London


PRESS RELEASE

 A dream finally coming true – An International Memorial to Dr Bhimrao Ramji Ambedkar in London

After tense months of delays, on 26 August 2015 the Government of Maharashtra exchanged contracts on 10 King Henry's Road, NW3. This house, located near Primrose Hill in north London, was where Dr Bhimrao Ramji Ambedkar lodged in 1921-22.  Dr Ambedkar (14 April 1891 – 6 December 1956), popularly known as Babasaheb, was an Indian juristeconomistpolitician andsocial reformer who inspired the Modern Buddhist Movementand campaigned against social discrimination againstUntouchables (Dalits), women and labour. He was Independent India's first law minister and the principal architect of theConstitution of India.

Ms Santosh Dass, MBE, President of the Federation of Ambedkarite and Buddhist Organisations UK, comments,

 

"I am delighted that Mr Raj Kumar Badole, Minister for Social Justice and Special Assistance at Government of Maharashtra, via the High Commission of India in London, has exchanged contracts on 10 King Henry's Road, NW3.

This follows my proposal to GOM in September 2014 that the house be bought by GOM and turned into an educational and cultural centre. Generations of Indians in the UK and visitors studying, interested or inspired by Dr Ambedkar's key roles in furthering social justice, human rights and equal treatment issues will be able to visit. He is a figure on par with William Wilberforce and Dr Martin Luther King. Additionally, its five bedrooms could be used as accommodation for Indian students from Dalit backgrounds while doing post-graduate studies in the UK.

FABO UK has a long history with this site. As part of the celebration of the centenary of Dr Ambedkar's birth, organised under the auspices of FABO UK, English Heritage in 1991 recognised its historic significance and installed a 'blue plaque' on the exterior of the property with the words "DR BHIMRAO RAMJI AMBEDKAR 1891-1956 Indian Crusader for Social Justice lived here 1921-22".

 

Whilst in this house Dr Ambedkar enriched his academic studies and strengthened his resolve to challenge the impact of the Caste System and British Rule in India. It was also during this time that India's Government was struggling with the falling value of the Indian Rupee – the backdrop to his thesis The Problem of the Rupee: Its origin and its solution.

There is a lot of work to do on the house before it can be opened to visitors.

We look forward to working with GOM and the High Commission in London in the months and years to come to ensure that this cultural and political heritage site is put to uses of which Dr Ambedkar would approve.

FABO UK would like to take this opportunity to thank the following key people in India and the GOM for their tireless and unflinching enthusiasm and support in making our vision a reality: Mr Raj Kumar Badole, GOM's Minister for Social Justice and Special Assistance, His Excellency, Mr Ranjan Mathai, High Commissioner of India in London, and his team, Mr Vinod Tawade, GOM's Minister of, Higher & Technical Education and Cultural Affairs,  Mr R K Giakwad IAS (Indian Administrative Services), Ex-Secretary & Commissioner Social Justice Department, Mr Ramdas Athwale, MP, Padma Shri Kalpana Saroj, and Mr Ramesh Katke, Deputy Registrar GOM.

Notes to Editors

 
Contact Ms Santosh Dass 0044 7902 806342 for more information or press interviews

FABOUK estimated the house would cost  GBP 4 million. This includes the current asking price for the property as advertised at GBP 3.1 million;   Stamp Duty; legal costs, house insurance costs, and the necessary renovations to the property.

FABO UK

In the UK there are a number of organisations with a common interest in following the teachings of Dr Ambedkar and traditions of Buddhism. FABO, UK with its Head Office in Southall, West London, was formed in 1985 as a central UK body to strengthen these organisations' loose or informal associations. It is a voluntary and non-profit making organisation. FABO UK has a number of objectives. One key one is to propagate the teachings of Dr Ambedkar and Lord Buddha. Over the years the numbers of organisations with a common interest that have joined FABO UK have fluctuated yet grown. FABO UK is run by an elected Executive Team. The current President of FABO UK of Ms Santosh Dass, MBE took up the position September 2013. The joint General Secretaries are Mr Arun Kumar and Mr Gautam Chakravarty.

Federation of Ambedkarite and Buddhist Organisations UK
Buddha Vihara   12 Featherstone Road  Southall  West London MIDDX UB2 5AA
--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

WHO IS RUNNING THE SHOW IN NEPAL ?


It becomes ridiculously outrageous when Nepal's defense secretary 'defends' saying -'no military force has been mobilized' in Tikapur, west Nepal Terai. And a writ-petition is now filed in the country's supreme court against what is understood, according to the deputy-prime-minister that the military is 'indeed' deployed down there !

-- 

The Himalayan Voice
Cambridge, Massachusetts
United States of America
Skype: thehimalayanvoice
[THE HIMALAYAN VOICE does not endorse the opinions of the author or any opinions expressed on its pages. Articles and comments can be emailed to: himalayanvoice@gmail.com, © Copyright The Himalayan Voice 2015]

भाद्र १०, २०७२- रक्षा सचिव ईश्वरीप्रसाद पौडेलले आन्दोलनरत क्षेत्रमा नेपाली सेना परिचालन नभएको बताएका छन् । कैलाली, रौतहट, सर्लाहीलगायतका जिल्लामा नेपाली सेना परिचालन भएको गृहमन्त्री वामदेव गौतमले संसद् बैठकमा बताएका थिए ।
सचिव पौडेलले भने, 'सेना परिचालनसम्बन्धी अन्तरिम संविधानले प्रष्ट व्यवस्था गरेको भन्दै सुरक्षा परिषद्को निर्णय अनुसार मन्त्रिपरिषद्को सिफारिसमा राष्ट्रपतिले मात्रै सेना परिचालन गर्नसक्न छन् ।' उनले भने, 'अहिले त्यस्तो निर्णय भएको छैन र सेना परिचालन भएको छैन, कसले कहाँ के भने मलाई थाहा छैन ।'

  

प्रकाशित: भाद्र १०, २०७२

--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

বিডিটুডে.নেট:পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার বিশ্বে তৃতীয় বৃহত্তম!

 
 
image
 
 
 
 
 
বিডিটুডে.নেট:পাকিস্তানের পরমাণু অস্ত্রভাণ্ডার বিশ্বে তৃত...
আগামী ৫ থেকে ১০ বছরের মধ্যে পাকিস্তানের হাতে অন্তত ৩৫০টি পরমাণু অস্ত্র থাকবে বলে আমেরিকার দুটি থিংক ট্যাংক জানিয়েছে। এর ফলে তারা বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম পরমাণু অস্ত্র...
Preview by Yahoo
 


--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

আমার সামনে ইনুর নেতৃত্বেই প্রথম গুলি করা হয় :গয়েশ্বর


আমার সামনে ইনুর নেতৃত্বেই প্রথম গুলি করা হয় :গয়েশ্বর

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশে প্রথম গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সশস্ত্র রাজনীতি শুরু করেন। এটা ঐতিহাসিক সত্য। তিনি হাসানুল হক ইনু ও কর্নেল তাহেরের ভাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি অধ্যাপক আনোয়ার হোসেনকে ১৯৭৪ সালে তত্কালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এম মনসুর আলীর বাড়িতে গুলিবর্ষণ করতে দেখেছিলেন বলে দাবি করে বলেন, গুলিটা প্রথম আনোয়ার হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হয়।
 
মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী তৃণমূল দলের জেলা প্রতিনিধি সভা উপলক্ষে আলোচনা সভায় তিনি এই মন্তব্য করেন। গয়েশ্বর বলেন, আমি জাসদে ছিলাম। আমাদের একটা সিদ্ধান্ত হলো, আমরা গ্রেপ্তার-অত্যাচার-অনাচারের বিরুদ্ধে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাড়ি ঘেরাও করব। কিন্তু ঘেরাও কর্মসূচিতে সশস্ত্র আক্রমণ, এটা আমাদের জানা ছিল না। ছিলেন কে? হাসানুল হক ইনু। আর কে ছিলেন? কর্নেল তাহেরের ছোট ভাই জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের কয়েক দিন আগের ভিসি আনোয়ার হোসেন। তিনি বলেন, 'আমরা জানি, মন্ত্রীর বাড়ির গেটের সামনে যাব, সরকারের পক্ষ থেকে কেউ আসবে, স্মারকলিপি নেবে। কিন্তু আমার সামনেই গুলিটা প্রথম এই আনোয়ার  হোসেন ও হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বেই শুরু হলো। যখন আত্মরক্ষার্থে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর বাসভবন থেকে পাল্টা গুলি এল, তখন আমরা দিগ্বিদিক ছোটাছুটি করছি। কারও হাত নেই, কারও পা নেই। কত জন মারা গেছে তখন জানার সুযোগ ছিল না।' গয়েশ্বর আরো বলেন, ১৯৭৪ সালে সরকারের বিরুদ্ধে হরতালের ডাক দেয় জাসদ। সেই হরতালে বোমা ব্যবহারের জন্য বোমা বানানোর দায়িত্ব দেয়া হয় ইঞ্জিনিয়ার নিখিল চন্দ্র সাহাকে। 

 
 
image
 
 
 
 
 
আমার সামনে ইনুর নেতৃত্বেই প্রথম গুলি করা হয় :গয়েশ্বর | র...
বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, জাসদ সভাপতি হাসানুল হক ইনু বাংলাদেশে প্রথম গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে সশস্ত্র রাজনীতি শুরু করেন। এটা ঐতিহাসিক সত্য। ...
Preview by Yahoo
 

--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

Majority not aware of Sexual Harassment at workplace legislation

Majority not aware of Sexual Harassment at workplace legislation

The Government of India is trying hard to tap the employers not adhering to the law pertaining to sexual harassment of women at workplace and a majority of the private sector is yet to have any awareness about the regulation.

It has been proved by way of a recent survey made out on the compliance of the Sexual Harassment of Women at Workplace (Prevention, Prohibition and Redressal) Act, 2013 has indicated that 97 per cent of the organisations are not aware about the law and its implementation.

To read more, please click below:


Majority not aware of Sexual Harassment at workplace legislation

Foreign Direct Investment – Reporting under FDI Scheme on the e-Biz platform

The Reserve Bank of India(RBI) has issued A.P. (DIR Series) Circular No. 9 dated 21st August, 2015 with a view to promote the ease of reporting of the transactions under foreign direct investment, Reserve Bank of India under the aegis of the e-Biz project of the Government of India.

The Government of India has enabled online filing of the Foreign Currency Transfer of Shares (FCTRS) returns for reporting transfer of shares, convertible debentures, partly paid shares and warrants from a person resident in India to a person resident outside India or vice versa.

To read more, please click below:

Foreign Direct Investment – Reporting under FDI Scheme on the e-Biz platform




Get Legal Updates on Corporate Laws from Corporate Law Reporter –the Daily Journal, by following the link below:

http://feedburner.google.com/fb/a/mailverify?uri=corporatelawreporter​

Do remember to activate your subscription by clicking on the activation link received in your Email
© 2015 Corporate Law Reporter
544, Tower B-2, Spaze i-Tech Park,
Sector 49, Sohna Road, Gurgaon - 122018

--


--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

Thus, wheat is imported! পোকায় খাওয়া গম আমদানি পাকাপোক্ত * ৫০ হাজার টন আমদানির টেন্ডার জমা দেওয়ার শেষ দিন আজ

Thus, wheat is imported!
পোকায় খাওয়া গম আমদানি পাকাপোক্ত
* ৫০ হাজার টন আমদানির টেন্ডার জমা দেওয়ার শেষ দিন আজ 



ব্রাজিল থেকে নিম্নমানের গম আমদানির কারণে দেশজুড়ে সমালোচনার উত্তাপ কমতে না কমতেই পোকায় খাওয়া গম আমদানির ব্যবস্থা পাকাপোক্ত করেছে খাদ্য অধিদপ্তর। গত ২৯ জুলাই গম আমদানির স্পেসিফিকেশনের (বিনির্দেশমালা) সংশোধনী চূড়ান্ত করেছে অধিদপ্তর। নতুন স্পেসিফিকেশনে বলা হয়েছে, আমদানি করা গমে ক্ষতিগ্রস্ত দানা ৩ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য। এই ৩ শতাংশের মধ্যে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ পোকায় খাওয়া দানা গ্রহণযোগ্য। অথচ দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট ব্রাজিল থেকে আনা ওই গম নিতে কাউকে বাধ্য করা যাবে না বলে সরকারকে বিশেষ নির্দেশনা দেন। মূলত নষ্ট গম আমদানি ও দুর্নীতির সুযোগ রাখার জন্যই স্পেসিফিকেশন শিথিল করা হয়েছে, যা সংবিধানের লঙ্ঘন বলছেন আইনজীবীরা।
নতুন স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী ইতিমধ্যেই ৫০ হাজার মেট্রিক টন গম আমদানির টেন্ডার (দরপত্র) আহ্বান করা হয়েছে। এই টেন্ডারেই বলা হয়েছে, দশমিক ৫ শতাংশ পোকায় খাওয়া গম গ্রহণযোগ্য হবে। কোনো আন্তর্জাতিক টেন্ডারে এই প্রথম পোকায় খাওয়া গম নেওয়ার কথা উল্লেখ করা হলো। এর আগে যত টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে, তার কোনোটিতেই পোকায় খাওয়া গম নেওয়ার শর্ত ছিল না।
বিদেশ থেকে ৫০ হাজার মেট্রিক টন গম আমদানির জন্য খাদ্য অধিদপ্তর গত ১৩ আগস্ট যে আন্তর্জাতিক টেন্ডার আহ্বান করেছে, তার শর্তাবলির ২৬(২) নম্বরে আমদানিকৃত গমের ক্ষতির পরিমাণ কী হবে তা উল্লেখ করা হয়েছে। সেখানে বলা হয়েছে, দশমিক ৫ শতাংশ পোকায় খাওয়া গম সরবরাহ করা যাবে। খাদ্য অধিদপ্তরে এই টেন্ডার আজ বৃহস্পতিবার জমা দেওয়ার শেষ দিন। কিন্তু টেন্ডার জমা দেওয়ার আগেই এ বিষয়ে আপত্তি তুলেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন ও অ্যাডভোকেট পাবেল মিয়া। পোকায় খাওয়া গম আমদানির সুযোগ রেখে দেওয়া ওই দরপত্র বাতিল করার জন্য তাঁরা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের আইনি নোটিশ দিয়েছেন। তাঁরা গত ২৪ আগস্ট খাদ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব, খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও প্রকিউরমেন্ট শাখার পরিচালককে পোকায় খাওয়া গম আমদানি থেকে বিরত থাকতে অনুরোধ করেছেন। নোটিশ পাওয়ার তিন দিনের মধ্যে ওই টেন্ডার বাতিল করতে বলা হয়েছে। অন্যথায় তাঁরা আইনগত পদক্ষেপ নেবেন বলে নোটিশে বলেছেন।
নতুন স্পেসিফিকেশনে বলা হয়েছে, ক্ষতিগ্রস্ত দানা ৩ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য। এই ৩ শতাংশের মধ্যে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ গমে ক্ষতিগ্রস্ত দানা ও শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ পোকায় খাওয়া দানা গ্রহণযোগ্য। আগের স্পেসিফিকেশন অনুযায়ী ক্ষতিগ্রস্ত দানা সর্বোচ্চ ৭ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণ করা হতো। এর মধ্যে শন্য দশমিক ৫ শতাংশ গমে ক্ষতিগ্রস্ত দানা মেনে নেওয়া হলেও পোকায় খাওয়া দানার কোনো উল্লেখ ছিল না। এবারই প্রথম স্পেসিফিকেশনে শূন্য দশমিক ৫ শতাংশ পোকায় খাওয়া দানা গ্রহণের বিধান রাখা হয়েছে। খাদ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, আগের স্পেসিফিকেশনে আমদানিকৃত গমের টেস্ট ওয়েট ছিল সর্বনিম্ন ৭২ কেজি। নতুন স্পেসিফিকেশনে টেস্ট ওয়েট নির্ধারণ করা হয়েছে ৭৬ কেজি। টেস্ট ওয়েট ৭৫ কেজির নিচে হলে তা গ্রহণ করা হবে না। আগে ভাঙা দানা সর্বোচ্চ ৮ শতাংশ গ্রহণ করা হতো। বর্তমানে তা ৫ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণ করা হয়। অন্য শ্রেণির মিশেল গম আগে সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণ করা হতো। বর্তমানে তা ৫ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণ করা হয়। আগে গমের প্রোটিন মান সর্বনিম্ন ৯.৫০ শতাংশ গ্রহণ করা হলেও বর্তমানে ১২.৫০ শতাংশের কম গ্রহণ করা হয় না। এ ছাড়া পাথর বা কঙ্কর সর্বোচ্চ এক শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণযোগ্য।
খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ফয়েজ আহমদ কালের কণ্ঠকে বলেন, 'আগের স্পেসিফিকেশনে ৪ শতাংশ ক্ষতিগ্রস্ত দানার কথা উল্লেখ থাকত। নানা কারণে গম ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এর মধ্যে গরম, পোকাসহ আরো কারণ রয়েছে। সরবরাহকারী যদি পুরোটাই পোকায় খাওয়া দানা সরবরাহ করতেন তাহলে খাদ্য অধিদপ্তর তা নিতে বাধ্য হতো। বর্তমান স্পেসিফিকেশনে পোকায় খাওয়া দানা কতটা গ্রহণ করা হবে তা সুনির্দিষ্ট করা হয়েছে। অর্থাৎ ক্ষতিগ্রস্ত গম ৩ শতাংশ পর্যন্ত গ্রহণ করা হবে। এর মধ্যে পোকায় খাওয়া গম নেওয়া হবে শন্য দশমিক ৫ শতাংশ। বিষয়টি স্পেসিফিকেশনে নতুন হলেও এর চর্চা আগে থেকেই ছিল। বর্তমান স্পেসিফিকেশনে বিষয়টি স্পষ্ট করা হয়েছে।'
তবে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী পাবেল মিয়ার পক্ষে আইনি নোটিশদাতা ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন কালের কণ্ঠকে বলেন, পোকায় খাওয়া গম আমদানির ধারা অন্তর্ভুক্তির ফলে দেশে নিম্নমানের গম আসবে, যা জনস্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। নিম্নমানের গম আমদানির প্রক্রিয়া শুরু করে খাদ্যসচিব ও খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক সাধারণ মানুষের সাংবিধানিক অধিকার ক্ষুণ্ন করেছেন। তিনি বলেন, সংবিধানের ১৮ নম্বর অনুচ্ছেদ অনুযায়ী জনগণের সুস্বাস্থ্য নিশ্চিত করা রাষ্ট্রের দায়িত্ব। সেখানে বলা হয়েছে, 'জনগণের পুষ্টির স্তর-উন্নয়ন ও জনস্বাস্থ্যের উন্নতি সাধনকে রাষ্ট্র অন্যতম প্রাথমিক কর্তব্য বলিয়া গণ্য করিবেন।' এ ছাড়া সংবিধানের ৩২ নম্বর অনুচ্ছেদে ব্যক্তির জীবনের স্বাধীনতা দেওয়া হয়েছে। সেখানে হস্তক্ষেপ করা যাবে না। কিন্তু দেশে পোকায় খাওয়া গম আমদানি করে জনস্বাস্থ্য ও ব্যক্তিস্বাধীনতা ক্ষতিগ্রস্ত করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে, যা বেআইনি। তিনি বলেন, টেন্ডারে পোকায় খাওয়া গম আমদানির শর্ত জুড়ে দেওয়ায় দুর্নীতিরও পথ খোলা হয়েছে। এ জন্যই দেশের জনগণের স্বাস্থ্য ও সম্পদের কথা বিবেচনা করে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের টেন্ডার বাতিল করার জন্য আইনি নোটিশ দেওয়া হয়েছে। এ নোটিশ পাওয়ার পর যদি ওই টেন্ডার বাতিল করা না হয় তবে রিট আবেদন করা হবে।
সম্প্রতি প্রথমবারের মতো ব্রাজিল থেকে বাংলাদেশে চার জাহাজে প্রায় আড়াই লাখ টন গম আমদানি করে খাদ্য অধিদপ্তর। এ গম রেশন হিসেবে পুলিশের কাছে গেলে পুলিশ তা গ্রহণ করতে আপত্তি জানায়। শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী নিম্নমানের গম কে বা কারা সরবরাহ করল, খাদ্য অধিদপ্তর কেন গ্রহণ করল তা খতিয়ে দেখার জন্য খাদ্যসচিব মুশফেকা ইকফাৎকে নির্দেশ দেন। এর মধ্যে এসব গম দেশের সব জেলায় ছড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি উচ্চ আদালতে গেলে এই গম কাউকে নিতে বাধ্য করা যাবে না বলে রায় দেওয়া হয়। কয়েকজন সংসদ সদস্য তাঁর নির্বাচনী এলাকার খাদ্য গুদাম থেকে এ গম বিতরণে বাধার সৃষ্টি করেন। একপর্যায়ে খাদ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালককে ওএসডি করা হয়। নতুন মহাপরিচালক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয় সরকারের অতিরিক্ত সচিব ফয়েজ আহমদকে। তিনি খাদ্য অধিদপ্তরে যোগ দিয়েই নিম্নমানের গম নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দরে অবস্থানরত চতুর্থ জাহাজটির গম খালাস করতে আপত্তি জানান। শেষ পর্যন্ত ওই নিম্নমানের গম সরকারের খাদ্য অধিদপ্তর গ্রহণ না করলেও তা ব্রাজিলে ফেরত যায়নি। বাংলাদেশেরই কোনো কোনো সংস্থা এসব গম কিনে আটা করে দেশের বাজারে বিক্রি করেছে বলে অভিযোগ আছে।


--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!

Mithun against partition of Bengal!বাংলা ভাগের বিরুদ্ধে মিঠুন চক্রবর্তী!Plays anti partition protagonist in Dhaka Film JANMOBOOMI!

Mithun against partition of Bengal!বাংলা ভাগের বিরুদ্ধে মিঠুন চক্রবর্তী!Plays anti partition protagonist in Dhaka Film JANMOBOOMI!

বাংলা ভাগের বিরুদ্ধে মিঠুন চক্রবর্তী

১৯৪৭ সালের কথা। মিঠুন চক্রবর্তী তখন তুখোড় বাম রাজনৈতিক নেতা এবং সাংবাদিক। যার চিন্তা চেতনায় সর্বক্ষণ ছিল বাংলাকে ঘিরে। দেশ তথা বাংলা (ঢাকা-কলকাতা) রক্ষার জন্যে তিনি সবকিছু করতে প্রস্তুত। কিন্তু এরমধ্যেই দ্বি-জাতি তত্ত্বের ভিত্তিতে দেশ ভাগ হয়ে যায়। বাধ্য হয়ে মিঠুনের পরিবারের সবাই তৎকালিন পূর্ব বাংলা (বর্তমান বাংলাদেশ) ছেড়ে চলে যান কলকাতায়। কিন্তু তার মনে একটাই প্রশ্ন, 'কেন নিজের দেশ ছেড়ে চলে যেতে হবে? এ দেশতো আমারই। কেন একটা বাংলা ভেঙ্গে দুই ভাগ হলো?' শুরু হয় বিভক্ত বাংলাকে ঘিরে মিঠুনের বিপ্লব।'জন্মভূমি' নামের একটি ছবিতে এমনই চরিত্রে দেখা যাবে ভারতের শক্তিমান অভিনেতা মিঠুন চক্রবর্তীকে। প্রসঙ্গত, ছবির গল্পের মতোই মিঠুন চক্রবর্তীর বাস্তব জীবন। তিনি বাংলাদেশের বরিশাল অঞ্চলের ছেলে। দেশ ভাগের সময় পরিবারের সঙ্গে বরিশাল ছেড়ে চলে যান ভারতে। সে কারণেই ঢাকার ছবি 'জন্মভূমি'র প্রধান চরিত্রের জন্য চুড়ান্ত করা হলো মিঠুন চক্রবর্তীকে।


--
Pl see my blogs;


Feel free -- and I request you -- to forward this newsletter to your lists and friends!